শিল্পী

কাজী নজরুল ইসলামের স্বরলিপিকার সঙ্গীতজ্ঞ মফিজুল ইসলাম

newsforever24 শিল্পী

কাজী নজরুল ইসলামের স্বরলিপিকার সঙ্গীতজ্ঞ মফিজুল ইসলাম

মফিজুল ইসলাম ১৯২৮ সালে নরসিংদী জেলায় জন্মগ্রহণ করেন। বাবা সেকান্দার আলী ছিলেন প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক এবং বৃটিশ-ভারত সমকালীন অবস্থায় এলাকার চেয়ারম্যান। মাতা সুফিয়া খাতুন ছিলেন করিমপুরের সঙ্গীতমনা একজন শিক্ষিকা। তার সংগীতের নেশাটাই ছিল মূখ্য। চল্লিশের দশকের প্রথমে আকাশবাণীতে আধুনিক গান এবং মাঝামাঝি সময়ে নজরুলের গান গাওয়া শুরু করেন। তিনি শান্তিরঞ্জন দাশগুপ্ত ও সাদেকুর রহমানের কাছ থেকে শিক্ষা নেবার পর কোলকাতার চিন্ময় লাহিড়ী, কালিপদ দাশ, কাঞ্চন বন্দ্যোপাধ্যায় ও প্রভাত বন্দ্যোপাধ্যায়ের কাছে তালিম নেন। অতঃপর গিরীশচক্রৰ্বতী, চিত্ত রায় বিএসসি, পঙ্কজ মল্লিকের সান্নিধ্যে আসেন। ঢাকাতে আসার পর উস্তাদ মানির হোসেন, উস্তাদ মুহাম্মদ হোসেন (টপ্লা) এবং উস্তাদ ফকির মুহম্মদের কাছে উর্দু শিখেছেন। ১৯৫৪ থেকে ১৯৬৫ পর্যন্ত নজরুল সংগীতের এক অমানিশার যুগে ‘হিন্দোল’ নামের স্বরলিপি প্রকাশ করেন। এ বইটি বিংশ শতাব্দীর ষাটের দশক থেকে এ পর্যন্ত নজরুল সংগীতের অনন্য স্বরলিপি গ্রন্থ। এ যাবৎ চার খন্ডে ‘হিন্দোল’ নামে নজরুল সংগীতের স্বরলিপি গ্রন্থ নিজস্ব প্রচেষ্টায় প্রকাশ করেন। যা নজরুল অনুরাগীদের মধ্যে সাড়া জাগাতে সক্ষম হয়েছে।

 

 

মফিজুল ইসলামের গাওয়া নজরুলের প্রথম রেকর্ড “আল্লা রসুল জপের গুণে” এবং “কাবার জেয়ারতে কে তুমি যাও মদিনায়”। এছাড়াও প্রথমদিকে তিনি কাজী নজরুল ইসলামের সুরে, “সকাল হোলে শোনরে আযান ওঠরে শয্যা ছাড়ি” এবং “আমার হৃদয় শামদানে জ্বালি মোমের বাতি” গানে কণ্ঠ দেন। কাজী নজরুল ইসলামের প্রায় অধিকাংশ গানেই কণ্ঠ দেন মফিজুল ইসলাম। আব্দুল আহাদ মফিজুল ইসলামকে উব্দুদ্ধ করেন নজরুলের গানের স্বরলিপি করতে। মাসিক মোহাম্মদীতে প্রকাশিত হতে থাকে তার স্বরলিপি। বিশেষতঃ যাটের দশকের শেষে তৎকালীন পল্লীগীতির গায়িকা সূরাইয়া খলিলীকৃত ‘নজরুলের সুরসুধা’ স্বরলিপি গ্রন্থের কল্পিত সুর ও ভুল মফিজুল ইসলামকে ভাবিয়ে তোলে। মফিজুল ইসলামের মেধা, সংগীত দক্ষতা, প্রতিভা, মোট কথা গত ষাট বছর ধরে উচ্চাঙ্গ, নজরুল ও বাংলা গানের বিচিত্র শাখায় তার অবদান প্রশংসনীয়। মফিজুল ইসলাম প্রথম নিখিল পাকিস্তান সংগীত সম্মেলনের আয়োজক ছিলেন। তার লেখা বেশ কিছু গল্প, প্রবন্ধ এক সময় বেশ সাড়া জাগিয়েছিল। তিনি বাংলাদেশ টেলিভিশন এবং বেতারের উচ্চতর সংগীত পরিচালক ছিলেন। ১৮ জানুয়ারি ২০১১ উপমহাদেশের প্রখ্যাত নজরুল স্বরলিপিকার সঙ্গীতজ্ঞ মফিজুল ইসলাম মৃত্যবরণ করেন। আগামি ১৮ জানুয়ারি ২০১৭ নজরুল স্বরলিপিকার সঙ্গীতজ্ঞ মফিজুল ইসলামের ৭ম মৃত্যুবার্ষিকী পালিত হবে।


ফটোগ্যালারী